“একটা বিকট ঝড় আর তছনছ পশ্চিমবঙ্গ সরকার”

একটা 135km/hr.ঝড় বেশ বে-আব্রু করে দিল দলটাকে। লোক-দেখানো, চোখ ধাঁধানো অনেক মিথ্যা ফাঁস হয়ে গেল।কলকাতাবাসী ভেবেছিল “এই বেশ ভাল আছি।রোজকার অনুপ্রাণিত TV channel গুলোর রাজনৈতিক কচকচি আর পিছিয়ে থাকা tv channel ‘য়ের সত‍্য খবরের দোলাচলে দুলেও খবরের যথার্থতা বিচার করার কোনো দায় নেই ভেবেছিল রাজ‍্যবাসী। ভেবেছিল ওসব ভোটের সময় দেখা যাবে..।কিন্তু সাধের বাংলাকে ঘেঁটেঘুঁটে ঘন্ট পাকিয়ে দিল আপদ আম্ফান।পুরসভায় গ‍্যাঁট হয়ে বসে থাকা আদরের ববি যে মস্তানিতেই দক্ষ পুরপ্রশাসক হিসাবে নয় তা কিছুতেই বুঝতে পারছেননা অন্ধ মমতা আপা।কিন্তু এই শহরের আর কোথাও কোথাও কিছু জেলার কোরোনা ও আম্ফান -আক্রান্ত মানুষ হাড়ে নাড়ে টের পেয়েছে তারা কতটা বঞ্চিত,অবাঞ্ছিত ও অসহায়। এই শহরের,রাজ‍্যের নীলসাদা রঙের নিচে লুকোনো নীতিহীনতার ব‍্যধি অবশেষে আম্ফানের প্রবল ঝড়বৃষ্টির আঘাতে আজ বেশ দৃশ‍্যমান।

সাড়ে পাঁচ হাজার(আজ শুনলাম আবার সাড়ে পনের হাজার) গাছ কাটতে মাত্র পঁচিশটা করাত…কি মজার কথা। যেন সোনার কাঠি রূপোর কাঠির মিস্টি রূপকথা।বাস্তবজ্ঞানহীন এই সরকারের নেই কোনো Disaster Management Team..অথচ রাজ‍্যবাসী পুরসভার tax দিয়েই যাচ্ছে। গাছ কাটার জন‍্য উন্নত যন্ত্র কেনা হয়নি,পুরসভায় কাদের বসিয়েছে শহরবাসী ?? কেন দিদি আপনি তো কথায় কথায় ফিরিস্তি দেন এই প্রকল্পে এত কোটি আর ওই প্রকল্পে অত কোটি টাকা দিয়ে দিলাম..যেন এই রাজ‍্যের কোষাগারটি আপনার পৈত্রিক সম্পত্তি।

আপনি তো দেশের প্রধানমন্ত্রীকেই মানতেননা, বছরের পর তাঁর সাথে একটিও সৌজন্য সাক্ষাৎ করেননি। আপনি বলেছিলেন নরেন্দ্র মোদীর কোমরে দড়ি দিয়ে জেলে পাঠাবেন।টেনে চড় মারার ইচ্ছাও জানিয়েছিলেন এক নির্বাচনী সভায়। নিজের স্বার্থে কত খারাপ কথা বলতে পারেন তা জানে এ রাজ‍্যবাসী। কোমড়ে দড়ি বেঁধে জেলে পাঠাবেন বলতেন।স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহজী রাজ‍্যে আসলে কালো পতাকা দেখানো, প্রধানমন্ত্রীকে Go back Modi বলাতে অনেক মানুষের মাথা খেয়েছিলেন।অমিত শাহকে অবাঙালি, বাংলার সংস্কৃতিকে কি বোঝেন.. গুজরাটি বলে ব্রাত‍্য করতে বলেছিলেন বাঙালিকে। আর আজ সেই অমিত শাহকে বলছেন সব দায় নিন,প্রধানমন্ত্রীকে আসতে বলছেন সেই প্রধানমন্ত্রী কিন্তু পশ্চিমবঙ্গের বিপর্যয়ে ছুটে এসেছেন। অমিত শাহজী চিন্তিত হয়ে ফোন করেছেন আপনাকে। আপনি তাঁকে রাজ‍্যের ভার দিতেও চাইলেন..এর বেলা আপনার Fedaral Structure ভাঙবেনা ? প্রধানমন্ত্রীর থেকে এক হাজার কোটি টাকার জন‍্য তাঁর পিছনে পিছনে হাঁটছিলেন। উপরি পাওনা হল উৎসুক মানুষের জয় শ্রীরাম ধ্বনি, যা আপনার কাছে গালাগালি।

যখন প্রায় সারাদেশ CAA মানল, আপনি মানলেননা, মাইলের পর মাইল হেঁটে চললেপ সাঙ্গপাঙ্গ নিয়ে। কাকের ভূত (কাক শুনেছি মৃত্যুর খবর আনে) আপনার মাথায় বসল, সবাইকে কা কা করাতে চাইলেন

এক দেশ এক রেশন কার্ড মানলেননা।


আয়ূস্মান ভারত প্রকল্পটি বর্জন করে রাজ‍্যবাসীকে সুচিকিৎসার সুরক্ষা থেকে বঞ্চিত করলেন।

প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনার পোস্টারকে কালো রঙে ঢেকে নিজের নাম ছবি দিয়ে রাজ‍্য সরকারের প্রকল্প বলে চালালেন।প্রধানমন্ত্রী সড়ক যোজনাতেও একই কর্ম।

এইসব প্রকল্পে আপনার দলের ছুঁচো নেতারাও কাট মানি খেল। আপনি সব জেনে নেতাদের বললেন সবাইকে দিয়ে খেতে। কিমাশ্চর্যম্ না??!! সিন্ডিকেটরাজ দমন করলেনা, দলের কেষ্ট বিষ্টু মাস্তান ভাইদের পকেটের কথা ভেবে।


এখন কোরোনা নিয়ে কি কান্ডটাই করছেন.., প্রথমে বললেন কেন্দ্র অপর্যাপ্ত কীট পাঠিয়েছে, তারপর কীট পড়ে রইল, পর্যাপ্ত পরীক্ষা হলনা। স্বাস্হ‍্যকর্মী ও চিকিৎসকদের জন‍্য সময়মত ও পর্যাপ্ত PPE ছিলনা তাই তাঁরাও আজ আক্রান্ত।এখন মাঝেমাঝেই তাদের সমবেত ক্ষোভ দেখা যায়। বিক্ষোভ করে।আপনার হাসপাতালে চিকিৎসা করানোতে জীবনের কোনো নিরাপত্তা নেই।রাগে ফুঁসছে রোগীর বাড়ির লোক। শয়ে শয়ে কোরোনা মৃতদেহ লোপাট করে কি হচ্ছে দিদি?রাজ‍্যে কোরোনা আক্রান্তের ও মৃত্যুর সংখ্যা তো ক্রমবর্ধমান। মৃত্যুর হারও এই রাজ‍্যে উচ্চ গতিশীল।


সিঙ্গুরের শিল্প যদি হত অনেক শ্রমিক এই রাজ‍্য ছেড়ে যেতনা। ভিটের থেকে দূরে থাকা পরিযায়ী শ্রমিকদের সময়মত ফেরার সুযোগই দিলেননা। কত নোডাল অফিসারের ফোন বেজেই গেল। কেউ কেউ মরেই গেল দুর্ঘটনায়। এখন সেই তো শ্রমিকদের ফেরাতে হল, সময়মত ফেরালে সংক্রমনের ভয় হতনা।ওরা আজ বেশিরভাগই hot spot থেকে আসছে।আর তাদের কারুর কারুর জায়গা হয়েছে সুলভ শৌচাগারের কোয়ারেনটিনে।আহা কি উপযুক্ত বন্দোবস্ত। তাদের “কোরোনা এক্সপ্রেস” বলে ব‍্যঙ্গ করতে বুক কাঁপছেনা আপনার?? পাপ কিন্তু বাপকেও ছাড়েনা।

ত্রান বিলি নিয়েও দ্বিচারিতা, তৃণমূল নেতা বিধায়কদের ত্রান বিলিতে পুলিশের না নেই অথচ বিরোধী দলের নেতা সাংসদদের পুলিশ বলপ্রয়োগ করে রাস্তায় আটকাচ্ছে। কি অদ্ভুত!!

পুলিশও আজ বিক্ষোভ দেখাচ্ছে, আপনিই তো পুলিশমন্ত্রী !! আপনার দলেও বিক্ষোভ। সাধন পান্ডে আর পরেশ পালের কি দুর্দান্ত fight 😂যেন রাস্তার নেড়ির ক‍্যাঁও ক‍্যাঁও।কি সুন্দর দলীয় শৃঙ্খলা !! যে দলেই শৃঙ্খলা নেই সে দল কি বুঝবে রাজ‍্যের শৃঙ্খলার কথা?? তাই বিশেষ বিশেষ এলাকায় Lock down য়ে সাত খুন মাফ। আপনি ভুল করেও ওদের ঠিক হতে বলবেননা। দুধেল গরু দুধ যদি না দেয়। 2021’য়ের বৈতরনী ববি হাকিমকে নিয়ে পার হতে পারবেন তো????

ভাবতেও খারাপ লাগে যে আপনার বড়লোক নেতা মন্ত্রী ও চেলা চামুন্ডারা চাল চোর !! চলছে কেন্দ্র সরকার প্রেরিত চালের ব্ল‍্যাকমার্কেটিং আর তার বিরুদ্ধে সাধারণ মানুষের প্রতিরোধ।

যখনই কোনো সরকারি দপ্তরের বিরুদ্ধে মানুষ সোচ্চার হয় তখনই ভারপ্রাপ্ত আমলাকে সরিয়ে দেওয়া হয়। যেন স্বাস্থ্যমন্ত্রীর সব দায় স্বাস্থ্য সচিবের ।খলিল আহমেদের দায় ঝড় থামানোর ছিল বোধহয়। জানিনা মমতা বেগমের রোষের বলি আর কত আমলা হবেন।
সংবাদমাধ্যমগুলো তো আপনার প্রেরণায় এগিয়ে যাচ্ছে। আর যারা একলা প্রেরণাহীন তাদের নবান্ন সভাঘরে প্রবেশানুমতি রদ হয়েছে।সত‍্য খবর দেখানোর সততার দাম দিতে হয়েছিল CN channel কে। টেলিকাস্ট বন্ধ ছিল। কোরোনা রোগীর শ্মশান তৈরির খবর করে তো এক tv channel ‘য়ের কি বিপদ।আর একটি tv channel ‘য়ের অফিসের বাইরে সব যোগাযোগকারী তার কেটে warning হয়ে গেছে।এরকম আরো কত কান্ড আছে..।

আম্ফান পরবর্তীকালে ফিরহাদ হাকিম 7 দিন পর দর্শন দিলেন। তাও হাইড্রোলিক ল‍্যাডার দিয়ে যখন গাছ কাটা হচ্ছে রানিং ক‍্যামেরার সামনে।

সার্জিকাল স্ট্রাইকের প্রমাণ চেয়েছিলেন না আপনি? বিশ্বাস করতে পারেননি ভারতীয় সেনাকে।তা সেনাবাহিনীই তো উদ্ধার করল এই শহর আর রাজ‍্যকে।তাও কোনো উপায় নেই দেখে 96 ঘন্টা পর ডাকলেন দোনোমোনো করে। তা ছবি তুলে রেখেছেন তো সেনাবাহিনীর কাজের??


আর CESC ?? কথায় কথায় সঞ্জীব সঞ্জীব করে ডাকতেন না business summit গুলোয় সঞ্জীব গোয়েঙ্কাকে?? অনেকেই শুনেছেন।তা ডাকবেননা সঞ্জীববাবুকে? CESE তো কলকাতা আর হাওড়াবাসীদের জলের অভাব আর গ্রীষ্মের আগুন দিয়ে জ‍্যান্ত পোড়ালেন। কোনো একটা কোম্পানিই শুধু ব‍্যবসা করবে কেন এই রাজ‍্যে?সঞ্জীব গোয়েঙ্কা আপনার ছবি কেনেন বলে??
মমতাজ বেগম মহাশয়া..! একটা বিকট ঝড় কিন্তু উড়িয়ে দিয়েছে আপনার নাকাব, অজস্র মিথ‍্যা প্রবঞ্চনাগুলোকে বুঝতে পারছে এবার পশ্চিমবঙ্গের জনগণ।একটা মারণরোগের মৃত্যুগাথার বইয়ের পৃষ্ঠাগুলো ঝড়ে উড়ছে চারিদিকে। দিদি 2021 ‘য়ে মানুষের ক্ষোভের বন‍্যায় আপনার পায়ের হাওয়াই চটিটা সামলে রাখবেন ।

লেখিকা – দেবারতি মিত্র (Kolkata)