সরকারি নির্দেশিকা অমান্যকারী

বিশ্ব জুড়ে করোনার তাণ্ডব চলছে। আমেরিকা ইতালি ফ্রান্সের মত অগ্রণী দেশগুলিতেও চলছে মৃত্যু মিছিল। সার দিয়ে পড়ে আছে শব দেহের সারি। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর তৎপরতায় ভারতবর্ষে এখন পর্য্যন্ত করোনার করাল গ্রাস খুব একটা থাবা বসাতে পারেনি। করোনা মোকাবিলায় নিজের কৃতিত্বের স্বাক্ষর রাখতে পারায় বিশ্ব জুড়ে জয়ধ্বনি চলছে প্রধানমন্ত্রীর নামে। প্রশংসিত হচ্ছেন জগৎ জুড়ে। এতদুর পর্য্যন্ত সবই ঠিকঠাক কিন্তু বাদ সাধছে একমাত্র পশ্চিমবঙ্গ। লক ডাউনের নামে চলেছে প্রহসন। একটি বিশেষ সম্প্রদায়ের মানুষ মোটেই মানছেন না এসব লক ডাউনের তত্ত্ব, নেপথ্যে মুখ্যমন্ত্রীর প্রত্যক্ষ সমর্থন। চলছে লুকোচুরি খেলা। জায়গায় জায়গায় মানুষের ঢল, আক্রান্ত বা মৃতের সংখ্যা নিয়েও চলছে মিথ্যাচার যার প্রশ্রয়দাত্রী স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রী। এক কথায় বলতে গেলে পশ্চিমবঙ্গ আজ রীতিমত করোনার আতুঁড়ঘরে পরিনত। ভোটব্যাঙ্কের এই সস্তা রাজনীতি করে মুখ্যমন্ত্রী কি পশ্চিমবঙ্গ কে বারুদের স্তূপে দাঁড় করিয়ে দিচ্ছেন না ? প্রশ্ন জাগে এই অবহেলা কি ইচ্ছাকৃত নয় ? নিজের রাজনৈতিক সিদ্ধিলাভ করতে, আমাদের জীবনে এত বড় বিপর্যয় ডেকে আনার অধিকার মুখ্যমন্ত্রীকে কে দিল ? বাংলার মানুষ কিন্তু জবাব চাইছে, আপনি এই অপরাধের দায় এড়াতে পারেন না মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী।

ex mp balurghat

22April

sheoraphuli bazar lockdown violation

শেওড়াফুলি (শ্রীরামপুর)

27April

west bengal chief minister

26March

উধাও লকডাউন, চলছে দেদার বেচাকেনা
নিয়মভঙ্গ যখন অভ্যেসে পরিণত
স্বেচ্ছাচারিতা যেখানে শেষ কথা।
থাকবো না কো বদ্ধ ঘরে
মানবো না কো কোন বাঁধা
অবাধে চলছে বাজার করা
এ কোন অসভ্যতা
এর নাম লকডাউন
লকডাউনের মুখে ছাই
অবাক বাঙলা
পুলিশ পেটানোর স্পর্ধা !! নেপথ্যে কি মুখ্যমন্ত্রীর ভোটব্যাঙ্ক রাজনীতির জন্য মাত্রাতিরিক্ত প্রশ্রয়???
আইনের রক্ষকরাই আইন ভঙ্গকারী।